রাশিয়া-ইউক্রেন জ্বালানি যুদ্ধ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে

Russian Ukrainian

রাশিয়ার অভ্যন্তরে ইউক্রেনের একের পর এক সফল হামলার পর মস্কো ইউক্রেনের জ্বালানি কেন্দ্রগুলোকে তীব্রভাবে টার্গেট করছে।

সোভিয়েত আমলের একটি কংক্রিট ভবনে তার দুই বেডরুমের অ্যাপার্টমেন্টে বিদ্যুৎ বা পানি সরবরাহ নেই এবং শুক্রবার ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভে রুশ ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর সেন্ট্রাল হিটিং বন্ধ হয়ে গেছে।

“এটা অসহনীয়, অসম্ভব। আমি হতাশায় চিৎকার করতে চাই,” ৩৩ বছর বয়সী এই যুবকের স্বামী মাইখাইলো দক্ষিণ-পূর্ব ইউক্রেনে রুশ বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করছেন।

শুক্রবার খারকিভের বাইরের তাপমাত্রা সবে হিমাঙ্কের উপরে উঠেছিল, একটি ঠান্ডা বৃষ্টিপাত হচ্ছিল এবং তার অ্যাপার্টমেন্ট ভবনটি “উষ্ণতা হারাচ্ছে”, তিনি বলেছিলেন।

ভোরবেলা প্রচণ্ড বিস্ফোরণের শব্দ শুনে বিছানা থেকে লাফিয়ে পড়েন তিনি। সাত বছর বয়সী দুই সন্তান বোহদান ও চার বছর বয়সী রোকসানাকে নিয়ে হিমশীতল বেসমেন্টে লুকিয়ে থাকার সময় এক ডজনেরও বেশি ভারী, রক্তাক্ত বিস্ফোরণ ঘটে।

বাচ্চারা “হিস্টিরিয়াল” ছিল কারণ তাদের সিয়ামিজ বিড়ালটিকে পিছনে ফেলে যেতে হয়েছিল। সোফার নিচ থেকে বের হতে না পারে তাদের পোষা প্রাণী মনইয়া।

২০২২ সালে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে তাদের দেশের জ্বালানি অবকাঠামোতে সবচেয়ে বড় হামলা চালানো বোমাবর্ষণের সুযোগটি তাকে এবং লাখ লাখ ইউক্রেনীয়কে বিচলিত করেছিল।

জ্বালানিমন্ত্রী হেরমান হালুশচেঙ্কো ফেইসবুকে লিখেছেন, ‘শুধু ধ্বংস করা নয়, গত বছরের মতো আবারও জ্বালানি অবকাঠামোতে ব্যাপক বিঘ্ন ঘটানোর চেষ্টা করাই আমাদের লক্ষ্য।

২০২২-২০২৩ সালের শীতে, মস্কো ইউক্রেনের সমস্ত দখল করার জন্য তার ব্লিটজক্রিগ ব্যর্থ হয়েছে বুঝতে পেরে জ্বালানি অবকাঠামো এবং বেসামরিক সাইটগুলিকে লক্ষ্য করে ব্যাপক গোলাবর্ষণ শুরু করে।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, শুক্রবারের প্রায় ৬০টি ড্রোন ও ৯০টি ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় কমপক্ষে দু’জন নিহত এবং বহু লোক আহত হয়েছে, ইউক্রেনের বৃহত্তম বাঁধে আঘাত হেনেছে এবং রাশিয়া অধিকৃত জাপোরিঝঝিয়া পরমাণু কেন্দ্রের বিদ্যুৎ সরবরাহ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি কয়েক মাস ধরে সামরিক সহায়তা বিলম্বের জন্য পশ্চিমাদের তিরস্কার করেছেন।

তিনি বলেন, ইউক্রেনের জন্য ত্রাণ প্যাকেজের মতো রুশ ক্ষেপণাস্ত্র পাঠাতে কোনো বিলম্ব নেই। [ইরানি তৈরি] ‘সাহেদ’ ড্রোনের কোনো সিদ্ধান্তহীনতা নেই, যা কিছু রাজনীতিবিদের মত। বিলম্ব এবং স্থগিত সিদ্ধান্তের মূল্য বোঝা গুরুত্বপূর্ণ, “তিনি এক্স-এ পোস্ট করেছেন, যা পূর্বে টুইটার নামে পরিচিত ছিল।

ইউক্রেনের প্রধান পরমাণু সংস্থা এনার্গোঅ্যাটম জানিয়েছে, হামলায় প্রধান বিদ্যুৎ লাইন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় জাপোরিঝঝিয়া কেন্দ্রটি ‘বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের দ্বারপ্রান্তে’ রয়েছে।

রাশিয়া ২০২২ সালের মার্চ মাসে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি দখল করে নেয়, কিন্তু এর বিদ্যুৎ প্রবাহকে শক্তি-ক্ষুধার্ত ক্রিমিয়ায় পুনর্নির্দেশ করতে ব্যর্থ হয়।

প্ল্যান্টের চুল্লিগুলি বন্ধ হয়ে গেছে তবে তাদের শীতল রাখতে এবং ইউরেনিয়াম জ্বালানী রডগুলি গলে যাওয়া রোধ করতে অবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ প্রয়োজন।

কয়েক ঘন্টার মধ্যে, বিচ্ছিন্ন লাইনটি পুনরায় সংযুক্ত করা হয়েছিল, এনার্গোএটমের একটি উত্স।

এটাই বিদ্যুতের প্রধান লাইন। একটি রিজার্ভও রয়েছে, এবং যদি কেবল পরেরটি অবশিষ্ট থাকে তবে ব্ল্যাকআউটের ঝুঁকি রয়েছে, “সূত্রটি বলেছে।

প্রতিরক্ষা মুখপাত্র নাতালিয়া হুমেনিয়ুক বলেন, শুক্রবারের হামলাটি দুই দিনের মধ্যে দ্বিতীয় হামলা- কারণ মস্কো ‘তার লক্ষ্যে পৌঁছানোর সর্বোচ্চ কার্যকর উপায় খুঁজছে’ বলে কৌশলগত পরিবর্তন হয়েছে।

টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভাষণে তিনি বলেন, ‘আমরা তাদের মোকাবেলায় কার্যকর উপায় খুঁজছি এবং তারা সন্ত্রাস দমনের উপায় খুঁজছে।

পরপর দু’দিন দু’বার হামলার কথা মনে পড়ছে না। কিন্তু ১৫-১৭ মার্চ রাশিয়ায় অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পর এ ধরনের হামলা প্রত্যাশিত ছিল।

কিছু বিশ্লেষক তার মূল্যায়নের সাথে একমত নন।

জার্মানির ব্রেমেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নিকোলাই মিত্রোখিন আল জাজিরাকে বলেন, কৌশলের কোনো পরিবর্তন হয়নি এবং রুশ হামলা ‘যথারীতি ব্যবসায়িক’।

তারা রাশিয়ার অভ্যন্তরে ইউক্রেনের ধারাবাহিক সফল হামলার প্রতিশোধ নিচ্ছে বলে জানান তিনি।

সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে রুশ জাতীয়তাবাদীদের ইউক্রেনপন্থী ব্যাটালিয়নগুলো ইউক্রেন সীমান্তের পশ্চিমাঞ্চলীয় বেলগোরোদ ও কুরস্ক অঞ্চলে বারবার হামলা চালিয়েছে।

বেলগোরোদে ইউক্রেনের বিধ্বংসী ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলার মাধ্যমে তাদের সমর্থন করা হয়।

বুধবার রাশিয়ার ভলগা অঞ্চলের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিমানঘাঁটিতে নতুন, অত্যাধুনিক ইউক্রেনীয় ড্রোন পৌঁছেছে যা ইউক্রেনে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের জন্য কৌশলগত বোমারু বিমান ব্যবহার করেছে।

মস্কো বলেছে, তাদের বাহিনী ড্রোনগুলো ভূপাতিত করেছে, কিন্তু মিত্রোখিন বলেছে, হামলাটি ‘দৃশ্যত সফল’ হয়েছে।

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে আরও ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় রাশিয়ার জ্বালানি অবকাঠামো ধ্বংস বা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের হিসাব অনুযায়ী, জানুয়ারি থেকে ইউক্রেন পশ্চিম রাশিয়ার অন্তত নয়টি তেল শোধনাগারে ডিপো, টার্মিনাল ও স্টোরেজ সুবিধাসহ হামলা চালিয়েছে, যা মস্কোর তেল প্রক্রিয়াজাতকরণ সক্ষমতা ৭ শতাংশ কমিয়ে দিয়েছে।

১৩ মার্চ পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর রিয়াজানের একটি তেল শোধনাগারে হামলার পর দুটি শোধনাগার বন্ধ করে দেওয়া হয়। বিশাল এই শোধনাগারটি রাশিয়ার পরিশোধিত অপরিশোধিত তেলের প্রায় ৬ শতাংশ উৎপাদন করে।

এর একদিন আগে ইউক্রেনের আরেকটি হামলায় নিঝনি নভগোরোদ শহরের কাছে আরেকটি তেল শোধনাগারের ধারণক্ষমতা অর্ধেকে নেমে আসে।

পশ্চিমাদের আরোপিত নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ইউক্রেন যুদ্ধে অর্থায়নকারী মস্কোর রফতানি আয়ের প্রধান উৎসকে এই হামলা আঘাত করেছে।

শুক্রবার ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, তেল শোধনাগারগুলোতে হামলা বন্ধ করতে কিয়েভের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ওয়াশিংটন।

চলতি সপ্তাহে মস্কোর সেনাদের দ্বিগুণ হামলাও রাশিয়ার গ্রীষ্মকালীন স্থল অভিযানের পথ প্রশস্ত করতে পারে।

কিয়েভভিত্তিক বিশ্লেষক আলেক্সেই কুশ বলেন, ‘এটিকে একটি নতুন অভিযান হিসেবে দেখা যেতে পারে যা রাশিয়ার গ্রীষ্মকালীন আক্রমণের পূর্বপ্রস্তুতি হতে যাচ্ছে।

আরেকজন পর্যবেক্ষক সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, শুক্রবারের সবচেয়ে গুরুতর ও উদ্বেগজনক হামলাটি ছিল ইউক্রেনের বৃহত্তম ডিনিপ্রোভস্কা জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের বাঁধকে লক্ষ্য করে।

কিয়েভভিত্তিক বিশ্লেষক ইহার তিশকেভিচ বলেন, ‘আজ হোক কাল হোক, এ ধরনের হামলা হতেই হতো।

তিনি বলেন, ডিনিপ্রো নদীর উপরের অংশে তুষার ও বরফ গলে এরই মধ্যে বসন্তের বন্যা শুরু হয়েছে যা এক মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছাবে।

তিনি বলেন, ‘এখন ভাবুন, যদি শুধু একটি বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

২০২২ সালের ডিসেম্বর ও ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে বিদ্যুৎ কেন্দ্রে আঘাত হানে রুশ ক্ষেপণাস্ত্র। শুক্রবারের হামলায় দুটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়েছে।

স্টেশনগুলো পরিচালনাকারী উক্রহাইড্রোএনার্গো এজেন্সির প্রধান ইহোর সিরোতা রেডিও লিবার্টিকে বলেন, ‘তবে বাঁধটি ধ্বংস হওয়ার কোনো আশঙ্কা নেই।

সর্বশেষ সংবাদ

Calendar

May 2024
S M T W T F S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031  

Related

আলোকবালী
আলোকবালী.কম একটি অনলাইন সংবাদপত্র যা শিক্ষা, চাকরি, প্রযুক্তি এবং আরও অনেক কিছু কভার করে। আলোকবালী.কম এমন একটি ওয়েবসাইট যা আপনি সর্বশেষ সংবাদ পেতে, নতুন জিনিস শিখতে, দরকারী টিপস সন্ধান করতে বা কিছু মজা করতে পরিদর্শন করতে পারেন। আলোকবালী.কম এমন একটি ওয়েবসাইট যা আপনি বিশ্বাস করতে এবং উপভোগ করতে পারেন।
অনুসরণ করুন

আমরা আপনার ডেটার সুরক্ষা সম্পর্কে যত্নশীল। আমাদের গোপনীয়তা নীতি পড়ুন।

কপিরাইট © ২০২৪ আলোকবালী। সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। সম্পাদক ও প্রকাশক: আওলাদ হোসেন।